তাজা বার্তা | logo

৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

১০ হাজার পরিবারে খাদ্যসামগ্রী পাঠালেন শামীম ওসমান

প্রকাশিতঃ এপ্রিল ১৬, ২০২০, ১৭:৪০

১০ হাজার পরিবারে খাদ্যসামগ্রী পাঠালেন শামীম ওসমান

নিজের নির্বাচনী এলাকা ফতুল্লার পাঁচটি ইউনিয়নের ৪৫টি ওয়ার্ডে রাতের আঁধারে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান। প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে শামীম ওসমান তাঁর ব্যক্তিগত অর্থায়নে কাশীপুর, বক্তাবলী, কুতুবপুর, এনায়েতনগর ও ফতুল্লা ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজার পরিবারের মধ্যে এই খাদ্যসামগ্রী নেতাকর্মীদের দিয়ে পৌঁছে দেন।

এদিক চলতি সপ্তাহেই সিদ্ধিরগঞ্জর প্রতিটি ওয়ার্ডে এই খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে। নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের প্রভাবশালী সংসদ সদস্য শামীম ওসমান এনটিভি অনলাইনকে জানান,এক কোটি টাকার অনুদানের পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী নিজ অর্থায়নে গত ১৩ এপ্রিল রাত থেকে ফতুল্লা ইউনিয়ন, কাশীপুর ইউনিয়ন, এনায়েতনগর ইউনিয়ন, বক্তাবলী ইউনিয়ন ও কুতুবপুর ইউনিয়নের মোট ৪৫ ওয়ার্ডে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন। এসব সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, আটা, ডাল, তেল, লবণ ও চিনি।

শামীম ওসমান বলেন, ‘একটানা লকডাউনের কারণে শুধু দিনমজুর বা হতদরিদ্ররাই নন, মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোও খাদ্যসংকটে ভুগছেন। তারা না পারছেন কাউকে বলতে, না পারছেন চাইতে। আমার কর্মীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাতের আঁধারে ফতুল্লা থানাধীন পাঁচটি ইউনিয়নের ৪৫টি ওয়ার্ডে মানুষের দরজায় দরজায় গিয়ে এই খাদ্যসামগ্রী দিয়ে এসেছেন। একটি মানুষও যাতে না খেয়ে না থাকে আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এই ব্যবস্থা করছি।

শামীম ওসমান বলেন, ‘বিশ্ব নবী রাসুল পাক (সা.) বলেছেন, নিজে খাওয়ার আগে আশপাশের ক্ষুধার্ত মানুষের খোঁজ নাও। তাই আমি সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলব, সব কিছু সরকারের একার পক্ষে করা সম্ভব নয়। সমাজের মানুষ হিসেবে  আপনারও কিছু দায়বদ্ধতা আছে, ধর্মীয়ভাবে দায়বদ্ধতা আছে। সংকটে পড়া এসব মানুষদের সাহায্য করে আপনি তাদের সাহায্য করছেন না, বরং নিজেকেই সাহায্য করছেন। কারণ, এসব মানুষ যখন আপনার উপহার পেয়ে তৃপ্তির হাসি হাসবে আর মন থেকে খুশি হবেন, তখন সেটাই হবে আপনার জন্য বড় দোয়া, বড় পাওয়া। তাই আপনারা এই দুঃসময়ে একত্রিত হয়ে এই অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ান। আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার এটাই মোক্ষম সময়।’

শামীম ওসমান বলেন, ‘যতক্ষণ জীবন আছে ততক্ষণ নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য করব। এটা আমার কর্তব্য। কারণ, যে ভালোবাসা সাধারণ মানুষের কাছ থেকে আমার পরিবার চার পুরুষ ধরে পেয়ে আসছি, তাতে আমরা ঋণী। এই ঋণ শোধ করার মতো নয়। তাই শুধু পাশে থেকে কিছুটা হাসি ফোটানো আর আল্লাহকে খুশি করার প্রয়াস মাত্র। তাই, আপনারা দয়া করে ঘরে থাকুন। খাবারের চিন্তা করবেন না। প্রয়োজনে সব কিছু বিলিয়ে দিয়ে হলেও একটি মানুষকে না খেয়ে কষ্ট পেতে দেব না। আপনারা দয়া করে ঘরে থাকুন। আমরা সবাই এই যুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ও আল্লাহর রহমতে জয়ী হবোই।’


© তাজা বার্তা ২০২১

Developed by XOFT IT