শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০৮ পূর্বাহ্ন

প্রাইভেট শিক্ষককে ফাঁদে ফেলে কাছে ৫ লাখ টাকা দাবি, যুবক গ্রেফতার

  • আপডেটঃ শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১
  • ২০০ বার দেখা হয়েছে

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় মায়ের অসুস্থতার কথা বলে বাসায় ডেকে নিয়ে ছোট ভাইয়ের প্রাইভেট শিক্ষককে নারী দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করার অভিযোগে মো. সালাউদ্দিন শেখ ওরফে জনিকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১১।

বৃহস্পতিবার (১ জুন) রাতে ফতুল্লার পিলকুনি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করেন র‍্যাব-১১ এর সদস্যরা। শুক্রবার (২ জুলাই) দুপুরে তাকে ফতুল্লা থানায় সোপর্দ করা হয়। গ্রেফতার জনি ফতুল্লা থানার শিয়াচর পিলকুনি এলাকার বাসিন্দা।

এ ঘটনায় শুক্রবার ভুক্তভোগী প্রাইভেট শিক্ষক আবু নাঈম মো. রাফি বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এর আগে গত মাসের ২৪ তারিখে তিনি ঘটনার বিস্তারিত জানিয়ে র‍্যাব-১১ এর কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। পরে র‍্যাব সদস্যরা ঘটনার সত্যতা পেয়ে বৃহস্পতিবার (১ জুন) রাতে জনিকে গ্রেফতার করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, আবু নাঈম মো. রাফি গ্রেফতার জনির ছোট ভাইকে প্রাইভেট পড়াতেন। সে সুবাদে জনি তার পূর্ব পরিচিত। সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে গত মাসের ২৩ তারিখে জনি তার মায়ের অসুস্থতার কথা বলে তাকে ফোন করে বাসায় ডেকে নেন। রাফি বাসায় ঢুকলে এক অজ্ঞাত তরুণীকে নিয়ে এসে জনি বলেন, মেয়েটিকে চাকরি দিতে হবে।

এ সময় জনি কৌশলে কোমল পানীয়ের সঙ্গে যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট মিশিয়ে রাফিকে পান করান। এরপর সেখানে থাকা তরুণী বিভিন্নভাবে তাকে আকৃষ্ট করে শারীরিক মিলনে প্রলুব্দ করেন। তখন তিনি নিজেকে সামলাতে না পেরে তরুণীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে লিপ্ত হন। আর বিষয়টি জনি গোপনে ভিডিওধারণ করেন। পরে রাত ১০টার দিকে জনি তাকে মোবাইল ফোন করে জানান যে, তরুণীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের বিষয়টি ভিডিওধারণ করা হয়েছে।

এ সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই ভিডিও ছড়িয়ে দিয়ে হেয় প্রতিপন্ন করার হুমকি দিয়ে জনি তার কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন। এ ঘটনার পরদিন রাফি র‍্যাব-১১ এর আদমজী কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পরে র‍্যাব অভিযান চালিয়ে জনিকে গ্রেফতার করে।

এলাকাবাসী জানান, গ্রেফতার জনির বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় ধর্ষণ ও হত্যার মামলা রয়েছে। মাদক ব্যবসাসহ নারী দিয়ে ফাঁদ তৈরি করে ব্ল্যাক মেইলিংয়ের বহু অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সবশেষ তিনি ২০১৮ সালে খাবারের সঙ্গে ট্যাবলেট মিশিয়ে অচেতন করে এক শিশুকে ধর্ষণ করেন। সে মামলায় তিনি দুই বছরেরও বেশি সময় কারাগারে থাকার পর জামিনে বেরিয়ে আসেন। এরপর আবারও নানা অপকর্ম শুরু করেন।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান বলেন, ব্ল্যাকমেইলিংয়ের অভিযোগে জনির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ রয়েছে সব বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। তার সাথে কে কে জড়িত রয়েছে তাও খতিয়ে দেখা হবে। কোনো অপরাধীকে ছাড় দেয়া হবে না।

এই বিভাগ থেকে আরও পড়ুন

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

স্বত্ব © তাজা বার্তা ২০২০-২০২১
Developed by XOFT IT