শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০৮ অপরাহ্ন

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বাড়ি থেকে ভাগিয়ে নিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ

  • আপডেটঃ সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১
  • ১৩৪ বার দেখা হয়েছে

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। নাজমুল ইসলাম (১৮) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ঘটনায় সোমবার (২৮ জুন) ভুক্তভোগীর বাবা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

অভিযুক্ত নাজমুল উপজেলার কচাকাটা থানার কচাকাটা ইউনিয়নের বড় ছড়ারপাড় গ্রামের আব্দুল মতিনের বলে জানা গেছে।

ধর্ষণের শিকার কিশোরীকে কচাকাটা থানায় ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ জুন) সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে বলে নিশ্চিত করেছে কচাকাটা থানা পুলিশ।

মামলা ও ভুক্তভোগীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ওই কিশোরী। তার সঙ্গে একই গ্রামের নাজমুল ইসলামের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরে তাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক তৈরি হয়। রোববার (২৭ জুন) সকালে নাজমুল ইসলাম বিয়ের প্রলোভনে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে রংপুরে নিয়ে যান। পরে সেখানে এক আত্মীয়ের বাসায় তারা রাতযাপন করেন। সেখানেও তাকে ধর্ষণ করেন নাজমুল।

এলাকাবাসীর চাপে পড়ে ছেলের বাবা আব্দুল মতিন সোমবার ভোরে রংপুরে ওই আত্মীয়ের বাড়ি থেকে ছেলে এবং মেয়েকে উদ্ধার করে বাড়ির দিকে রওনা দেন। পরে মেয়ের পরিবারের লোকজন জানতে পেরে তারাও বাড়ি থেকে রওনা দিলে পথে কেদার ইউনিয়নের পুটিমারী এলাকায় তাদের সাক্ষাৎ হয়। সেখানে ছেলের বাবা আব্দুল মতিন ছ্যাংছাঙ্গির পাড় এলাকার ফজলে মিয়ার ছেলে রুবেল মিয়ার (৩২) সহযোগিতায় মেয়ের ফুফা নুরনবী মিয়ার (৫০) ভগ্নিপতি শাহাদৎ হোসেনকে (৩৫) মারপিট করেন এবং ভুক্তভোগী কিশোরীকে ফেলে রেখে ছেলেকে নিয়ে সটকে পড়েন।

পরে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে অভিযুক্ত নাজমুলসহ তাকে সহযোগিতাকারী তার বাবা আব্দুল মতিন ও রুবেল মিয়াকে আসামি করে কচাকাটা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

কচাকাটা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল বলেন, কম বয়সী মেয়েকে ভুলিয়ে বাড়ি থেকে ভাগিয়ে নিয়ে যায় নাজমুল। উভয় পরিবার বিষয়টি সুরাহা করার উদ্দেশে বাড়িতে আসার সময় মাঝপথে ছেলেকে নিয়ে সটকে পড়েন ছেলের বাবা। এ বিষয়ে মেয়ের পরিবার আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

কচাকাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাবুব আলম জানান, এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। ভুক্তভোগী কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষার ফলাফলে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হবে।

এই বিভাগ থেকে আরও পড়ুন

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

স্বত্ব © তাজা বার্তা ২০২০-২০২১
Developed by XOFT IT